মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ইউনিয়ন পরিষদের কার্যাবলী

                                ইউনিয়ন পরিষদের কার্যাবলী

১। পাঁচশালা ও বিভিনড়ব মেয়াদী উনড়বয়ন পরিকল্পনা তৈরী।

২। পলস্নী অবকাঠামো উনড়বয়ন, সংরক্ষণ ও রক্ষণাবেক্ষণ।

৩। শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা কার্যএম্নম সম্পর্কিত

৪। স্বাস্থ্য, পরিবার পরিকল্পনা সম্পর্কিত কার্যক্রম বাসত্মবায়ন।

৫। কৃষি, মৎস্য ও পশুসম্পদ ও অন্যান্য অর্থনৈতিক উনড়বয়নে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ।

৬। মহামারী নিয়ন্ত্রণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ।

৭। কর, ফি, টোল, ফিস ইত্যাদি ধার্যকরণ ও আদায়।

৮। পারিবারিক বিরোধ নিরসন, নারী ও শিশু কল্যাণ সম্পর্কিত প্রয়োজীয় কার্যক্রম সম্পাদন।

৯। খেলাধুলা, সামাজিক উনড়বতি সংস্কৃতি ইত্যাদি কার্যক্রমে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ ও সহযোগিতা

প্রদান।

১০। পরিবেশ উনড়বয়ন ও সংরক্ষণে প্রয়োজীয় ব্যবস্থা গ্রহণ।

১১। আইন শৃংখলা রক্ষায় সরকারের অর্পিত দায়িত্ব পালন ও প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ।

১২। জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধীকরণ।

১৩। সরকারি স্থান, উন্মুক্ত জায়গা, উদ্যান ও খেলার মাঠের হেফাজত করা।

১৪। ইউনিয়ন পরিষদের রাসত্মায় ও সরকারি স্থানে বাতি জ্বালানো।

১৫। বৃক্ষরোপণ ও সংরক্ষণ এবং বৃক্ষসম্পদ চুরি ও ধ্বংস প্রতিরোধ।

১৬। কবরস্থান, শ্মশান, জনসাধারণের সভার স্থান ও অন্যান্য সরকারি সম্পত্তির রক্ষণাবেক্ষণ ও

পরিচালনা।

১৭। জনপথ, রাজপথ ও সরকারি স্থানে অনধিকার প্রবেশ রোধ এবং এইসব স্থানে উৎপাত ও তাহার

কারণ বন্ধ করা।

১৮। জনপথ ও রাজপথের ক্ষতি, বিনষ্ট বা ধ্বংস প্রতিরোধ করা।

১৯। গোবর ও রাসত্মার আবর্জনা সংগ্রহ, অপসারণ ও ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা।

২০। অপরাধমূলক ও বিপজ্জনক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ।

২১। মৃত পশুর দেহ অপসারণ ও নিয়ন্ত্রণ এবং পশু জবাই নিয়ন্ত্রণ।

৭০৬০ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯

২২। ইউনিয়নে নতুন বাড়ি, দালান নির্মাণ ও পুনঃনির্মাণ এবং বিপজ্জনক দালান নিয়ন্ত্রণ।

২৩। কূয়া, পানি তোলার কল, জলাধার, পুকুর এবং পানি সরবরাহের অন্যান্য উৎসের ব্যবস্থাপনা ও

সংরক্ষণ।

২৪। খাবার পানির উৎসের দূষণ রোধ এবং জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর সন্দেহযুক্ত কূপ, পুকুর বা

পানি সরবরাহের অন্যান্য স্থানের পানি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা।

২৫। খাবার পানির জন্য সংরক্ষিত কূপ, পুকুর বা পানি সরবরাহের অন্যান্য স্থানে বা নিকটবর্তী স্থানে

গোসল, কাপড় কাঁচা বা পশু গোসল করানো নিষিদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা।

২৬। পুকুর বা পানি সরবরাহের অন্যান্য স্থানে বা নিকটবর্তী স্থানে শন, পাট বা অন্যান্য গাছ

ভিজানো নিষিদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা।

২৭। আবাসিক এলাকার মধ্যে চামড়া রং করা বা পাকা করা নিষিদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা।

২৮। আবাসিক এলাকার মাটি খনন করিয়া পাথর বা অন্যান্য বস্ত্ত উত্তোলন নিষিদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা।

২৯। আবাসিক এলাকায় ইট, মাটির পাত্র বা অন্যান্য ভাটি নির্মাণ নিষিদ্ধ বা নিয়ন্ত্রণ করা।

৩০। অগিড়ব, বন্যা, শিলাবৃষ্টিসহ ঝড়, ভূমিকম্প বা অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রয়োজনীয়

তৎপরতা গ্রহণ ও সরকারকে সার্বক্ষণিক সহায়তা প্রদান।

৩১। বিধবা, এতিম, গরীব ও দুঃস্থ ব্যক্তিদের তালিকা সংরক্ষণ ও সাহায্য করা।

৩২। সমবায় আন্দোলন ও গ্রামীণ শিল্পের উনড়বয়ন ও উৎসাহ প্রদান।

৩৩। বাড়তি খাদ্য উৎপাদনের ব্যবস্থা গ্রহণ।

৩৪। গবাদিপশুর খোয়াড় নিয়ন্ত্রণ ও রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা করা।

৩৫। প্রাথমিক চিকিৎসা কেন্দ্রের ব্যবস্থা করা।

৩৬। ইউনিয়নের বাসিন্দাদের নিরাপত্তা, আরাম-আয়েশ বা সুযোগ সুবিধার জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য

ব্যবস্থা গ্রহণ।

৩৭। ই-গভর্ণেন্স চালু ও উৎসাহিতকরণ।

৩৮। ইউনিয়ন পরিষদের মত সদৃশ কাজে নিয়োজিত অন্যান্য সংস্থার সাথে সহযোগিতা সম্প্রসারণ।

৩৯। সরকার কর্তৃক সময়ে সময়ে আরোপিত দায়িত্বাবলী।

বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯ ৭০৬১

তৃতীয় তফসিল

(ধারা ৬৩ দ্রষ্টব্য)

সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের ইউনিয়ন পরিষদে হসত্মামত্মরে সরকারের ক্ষমতা

ক্রমিক

নং

মন্ত্রণালয়/বিভাগের নাম ইউনিয়ন পরিষদের নিকট হসত্মামত্মরযোগ্য সরকারের দপ্তর

ও কার্যাবলী

১। স্থানীয় সরকার বিভাগ ১. স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনস্থ উপসহকারী

প্রকৌশলী, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

২. জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনস্থ টিউবওয়েল

মেকানিক, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

২। কৃষি মন্ত্রণালয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অধীনস্থ উপ-সহকারী কৃষি

সম্প্রসারণ কর্মকর্তা, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

৩। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ

মন্ত্রণালয়

১. স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনস্থ স্বাস্থ্য পরিদর্শক এবং সহকারী

স্বাস্থ্য পরিদর্শক, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

২. পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের অধীনস্থ পরিবার কল্যাণ

পরিদর্শক ও পরিবার কল্যাণ সহকারী, জনবল এবং

তাহাদের কার্যাবলী।

৪। প্রাথমিক ও গণশিক্ষ মন্ত্রণালয় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনস্থ সহকারী শিক্ষা

কর্মকর্তা, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

৫। মৎস্য ও পশু সম্পদ মন্ত্রণালয় মৎস্য ও পশু সম্পদ অধিদপ্তরের অধীনস্থ ভেটেরেনারী

ফিল্ড এসিসট্যান্ট এবং ভেটেরেনারী ফিল্ড এসিসট্যান্ট

(কৃত্রিম প্রজনন), জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

৬। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সমাজসেবা অধিদপ্তরের অধীনস্থ ইউনিয়ন সমাজকর্মী,

জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

৭। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনসার ও ভিডিপি অধিদপ্তরের অধীনস্থ ইউনিয়ন

দলনেতা, জনবল ও তাহাদের কার্যাবলী।

৭০৬২ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯

চর্তু তফসিল

(ধারা ৬৫ হইতে ৭০ দ্রষ্টব্য)

ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক আরোপণীয় কর, রেইট, টোল, ফিস এবং অন্যান্য সূত্র হইতে প্রাপ্ত আয়

১। নির্ধারিত পদ্ধতিতে আরোপিত ইমারত/ভূমির বার্ষিক মূল্যের উপর কর অথবা ইউনিয়ন রেইট।

২। পাকা ইমারতের সর্বমোট আয়তনের প্রতি বর্গফুটের উপর নির্ধারিত হারে ইমারত পরিকল্পনা

অনুমোদন ফি।

৩। পেশা, ব্যবসা এবং বৃত্তির (কলিং) উপর কর।

৪। সিনেমা, ড্রামা ও নাট্য প্রদর্শনী এবং অন্যান্য আমোদ প্রমোদ এবং চিত্ত বিনোদনের উপর কর।

৫। ইউনিয়ন পরিষদ কতৃর্ক প্রদত্ত লাইসেন্স এবং পারমিটের উপর ফি।

৬। ইউনিয়নের সীমানার মধ্যে নির্ধারিত হাট-বাজার এবং ফেরী ঘাট হইতে ফি (লীজ মানি)।

৭। ইউনিয়নের সীমানার মধ্যে হসত্মামত্মরিত জলমহাল এর সরকার নির্ধারিত অংশ।

৮। ইউনিয়নের সীমানার মধ্যে অবস্থিত পাথরমহাল, বালুমহালের আয়ের সরকার নির্ধারিত অংশ।

৯। স্থাবর সম্পত্তি হসত্মামত্মর কর বাবদ আয়ের অংশ।

১০। নিকাহ নিবন্ধন ফি।

১১। ভূমি উনড়বয়ন কর সংক্রামক আয়ের অংশ।

১২। বিজ্ঞাপনের উপর কর।

১৩। এই আইনের যে কোন বিধানের অধীনে অন্য যে কোন কর।

বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯ ৭০৬৩

পঞ্চম তফসিল

(ধারা ৮৯ দ্রষ্টব্য)

ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে বিবেচ্য অপরাধসমূহ

১। ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক আইনানুগভাবে ধার্যকৃত কর ইত্যাদি ফাঁকি দেওয়া।

২। এই আইন, বিধি-প্রবিধানের অধীন যে সব বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ কোন তথ্য চাইতে পারে

সেই সব বিষয়ে চাহিদা অনুযায়ী তথ্য সরবরাহ করিতে ব্যর্থ হইলে বা ভুল তথ্য সরবরাহ

করিলে।

৩। এই আইন, বিধি-প্রবিধানের বিধান অনুযায়ী যে কাজের জন্য লাইসেন্স বা অনুমতি প্রয়োজন

সেই কাজ বিনা লাইসেন্স বা বিনা অনুমতিতে সম্পাদন করিলে।

৪। ইউনিয়ন পরিষদের বিনা অনুমতিতে কোন বিপজ্জনক বা ক্ষতিকর ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা

অথবা কোন বিপজ্জনক বা ক্ষতিকর দ্রব্য জমা করিলে।

৫। ইউনিয়ন পরিষদের অনুমতি ব্যতিরেকে সর্বসাধারণের ব্যবহার্য কোন জনপথ বা রাজপথ বা

সরকারি জায়গায় অবৈধ অনুপ্রবেশ ঘটাইলে।

৬। পানীয় জল দূষিত বা ব্যবহারের অনুপযোগী হয় এমন কাজ করিলে।

৭। জনস্বাস্থ্যের পক্ষে বিপজ্জনক হওয়া সন্দেহে এই আইনের অধীন কোন উৎস হইতে পানি পান

করা নিষিদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও ঐ উৎস হইতে পানি সরবরাহ বা পান করা।

৮। কূয়া বা জনসাধারণের ব্যবহার্য কোন পানীয় জলের উৎসের সনিড়বকটে গবাদিপশু বা জীবজন্তুকে

পানি পান করানো, পায়খানা প্রস্রাব করানো বা গোসল করানো।

৯। আবাসিক এলাকা হইতে এই অধ্যাদেশের অধীন নির্ধারিত দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত কোন পুকুরে

বা ডোবায় অথবা ইহার সনিড়বকটে শন, পাট বা অন্য গাছপালা ডুবাইয়া রাখা।

১০। আবাসিক এলাকা হইতে এই অধ্যাদেশের অধীন নির্ধারিত দূরত্বের মধ্যে চামড়া রং করা বা

পাকা করা।

১১। আবাসিক এলাকা হইতে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক নির্ধারিত দূরত্বের মধ্যে মাটি, পাথর বা অন্য

কোন কিছু খনন করা।

১২। আবাসিক এলাকা হইতে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক নিষিদ্ধ দূরত্বের মধ্যে ইটের ভাটি, চূণ ভাটি,

কাঠ-কয়লা ভাটি বা মৃৎ শিল্প স্থাপন।

১৩। আবাসিক এলাকা হইতে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক নিষিদ্ধ দূরত্বের মধ্যে মৃত জীবজন্তুর দেহ

বিশেষ ফেলা।

১৪। এই আইনের দ্বারা নির্দেশিত হওয়া সত্ত্বেও, কোন জমি বা ইমারত হইতে আবর্জনা, জীবজন্তুর

বিষ্ঠা, সার অথবা দুর্গন্ধযুক্ত অন্য কোন পদার্থ অপসারণে ব্যর্থতা।

৭০৬৪ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯

১৫। এই আইনের দ্বারা নির্দেশিত হওয়া সত্ত্বেও কোন শৌচাগার, প্রস্রাবখানা, নর্দমা, মলকুন্ড, পানি,

আবর্জনা অথবা বর্জ্য পদার্থ রাখিবার জন্য অন্যান্য স্থান বা পাত্র আচ্ছাদনে, অপসারণে,

মেরামতে, পরিষ্কার করিতে, জীবাণুমুক্ত করিতে অথবা যথাযথভাবে রক্ষণে ব্যর্থতা।

১৬। এই আইনের অধীন কোন আগাছা, ঝোপঝাড় বা লতাগুল্ম জনস্বাস্থ্যের বা পরিবেশের জন্য

প্রতিকূল ঘোষণা হওয়া সত্ত্বেও তাহা অপসারণ বা পরিষ্কার করিতে সংশিস্নষ্ট ভূমির মালিকের বা

দখলদারের ব্যর্থতা।

১৭। জনপথ সংলগড়ব কোন স্থানে জন্মানো কোন আগাছা, লতাগুল্ম বা গাছপালা জনপদের উপর

ঝুলিয়া থাকা অথবা জনসাধারণের ব্যবহার্য পানির পুকুর, কূয়া বা অন্য কোন উৎসের উপর

ঝুলিয়া থাকা চলাচলের বিঘড়ব সৃষ্টি করা সত্ত্বেও বা পানি দূষিত করা সত্ত্বেও অথবা তাহা এই

আইনের অধীনে জনস্বাস্থ্য হানিকর বলিয়া ঘোষিত হওয়া সত্ত্বেও সংশিস্নষ্ট স্থানের মালিক বা

দখলদার কর্তৃক তাহা কাটিয়া ফেলিতে, অপসারণ করিতে বা ছাটিয়া ফেলিতে ব্যর্থ হওয়া।

১৮। এই আইনের অধীন জনস্বাস্থ্যের জন্য বা পার্শ্ববর্তী এলাকার জন্য ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত কোন

শস্যের চাষ করা, সার বা কীটনাশক প্রয়োগ করা বা ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত পন্থায় জমিতে

সেচের ব্যবস্থা করা।

১৯। এই আইনের বিধান অনুযায়ী প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে ইচ্ছাকৃতভাবে অথবা

অবহেলাভরে পায়খানার গর্ত বা পায়খানার নালা হইতে মলমূত্র বা অন্য কোন ক্ষতিকর পদার্থ

কোন জনপথ বা জনসাধারণের কোন স্থানের উপর প্রবাহিত করিতে বা ছড়াইয়া যাইতে দেওয়া

বা এতদুদ্দেশ্যে ব্যবহৃত নয় এই প্রকার কোন নর্দমা, খাল বা পয়ঃপ্রণালীর উপর পতিত হইতে

দেওয়া।

২০। এই আইনের অধীন জনস্বাস্থ্যের জন্য বা পার্শববর্তী এলাকার জন্য ক্ষতিকর বলিয়া ঘোষিত কোন

কূপ, পুকুর বা পানি সরবরাহের অন্য কোন উৎস পরিষ্কার করিতে, মেরামত করিতে, আচ্ছাদন

করিতে বা ভরাট করিতে বা তাহা হইতে পানি নিষ্কাশন করিতে ইহার মালিক বা দখলকারের

ব্যর্থতা।

২১। এই আইনের বিধান অনুযায়ী নির্দেশিত হইয়া কোন জমি বা দালান হইতে কোন পানি বা

আবর্জনা নিষ্কাশনের জন্য যথোপযুক্ত পাইপ বা নর্দমার ব্যবস্থা করিতে জমি বা দালানের মালিক

বা দখলদারের ব্যর্থতা।

২২। চিকিৎসক হিসাবে কর্তব্যরত থাকাকালীন সংক্রামক রোগের অসিত্মত্ব সম্পর্কে অবগত হওয়া

সত্ত্বেও ইউনিয়ন পরিষদের নিকট তৎসম্পর্কে রিপোর্ট করিতে কোন চিকিৎসকের ব্যর্থতা।

২৩। কোন দালানে সংক্রামক রোগের অসিত্মত্ব সম্পর্কে অবহিত হওয়া সত্ত্বেও তৎসম্পর্কে কোন

ব্যক্তির ইউনিয়ন পরিষদকে খবর দেওয়ার ব্যর্থতা ।

২৪। সংক্রামক রোগজীবাণু দ্বারা আক্রামত্মক কোন দালান সংক্রামকমুক্ত করিতে ইহার মালিকের

ব্যর্থতা।

২৫। সংক্রামক ব্যাধি দ্বারা আক্রামত্ম ব্যক্তি কর্তৃক খাদ্য বা পানীয় পান করা।

বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯ ৭০৬৫

২৬। রোগজীবাণু দ্বারা আμামত্ম কোন যানবাহনের মালিক বা চালক কর্তৃক সংক্রমিত গাড়ি

সংক্রমণমুক্ত করিতে ব্যর্থ হইলে বা সংক্রমিত গাড়িতে যাত্রী বহন করিলে।

২৭। দুগ্ধের বা খাদ্যের জন্য রক্ষিত কোন প্রাণীকে ক্ষতিকর কোন দ্রব্য খাওয়াইলে বা খাবার সুযোগ

দিলে।

২৮। এতদুদ্দেশ্যে নির্ধারিত স্থান ব্যতিরেকে অন্য কোন স্থানে মাংস বিষয়ের উদ্দেশ্যে কোন প্রাণী

জবাই করা।

২৯। ক্রেতার চাহিদা মোতাবেক খাদ্য বা পানীয় সরবরাহ না করিয়া নিম্ন বা ভিনড়ব মানের খাদ্য বা

পানীয় সরবরাহ করিয়া ক্রেতাকে ঠকানো।

৩০। ভিক্ষার জন্য বিরক্তিকর কাকুতি মিনতি করা বা শরীরের কোন বিকৃত বা গলিত অংগ বা নোংরা

ক্ষতস্থান প্রদর্শন করা।

৩১। নিষিদ্ধ ঘোষিত এলাকায় পতিতালয় স্থাপন বা পতিতা বৃত্তি পরিচালনা করা।

৩২। এই আইনের অধীন নির্দেশিত হওয়া সত্ত্বেও, বাড়ি হইতে ময়লা নিষ্কাশনের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা

করিতে বাড়ীর মালিক বা দখলদারের ব্যর্থতা।

৩৩। কোন বৃক্ষ বা ইহার শাখা কর্তন, বা অন্য কোন দালান বা ইহার কোন অংশ নির্মাণ বা ভাংচুর

এই আইনের অধীনে জনসাধারণের জন্য বিপদজ্জনক বা বিরক্তিকর ঘোষণা করা সত্ত্বেও তাহা

কর্তন, নির্মাণ বা ভাংচুর।

৩৪। ইউনিয়ন পরিষদের অনুমোদন ব্যতিরেকে কোন রাসত্মা নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্ত্তর স্থাপন বা স্থাপনের

চেষ্টা বা রাসত্মা নির্মাণ করিলে।

৩৫। নির্ধারিত স্থান ব্যতীত অন্য কোন দালান বা স্থানে নোটিশ, পেস্নকার্ড, বিজ্ঞাপন বা অন্য কোন

প্রচারপত্র লাগানো।

৩৬। এই আইনের অধীন বিপজ্জনক বলিয়া ঘোষিত পদ্ধতিতে কাঠ, ঘাস, খড় বা অন্য কোন দাহ্য

বস্ত্ত স্ত্তপীকৃত করা।

৩৭। এই আইনের অধীন প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে কোন রাসত্মার উপরে পিকেটিং করা,

জীবজন্তু রাখা, যানবাহন জমা করিয়া রাখা, অথবা কোন রাসত্মাকে যানবাহন বা জীবজন্তুকে

থামাইবার স্থান হিসাবে অথবা তাঁবু খাটাইবার স্থান হিসাবে ব্যবহার করা।

৩৮। গৃহপালিত জীবজন্তুকে যত্রতত্র ঘুরিয়া বেড়াইতে দেওয়া।

৩৯। সূর্যাসেত্মর আধঘন্টা পর হইতে সূর্যোদয়ের আধঘন্টা পূর্ব পর্যমত্ম সময়ের মধ্যে কোন যানবাহন

যথাযথ বাতির ব্যবস্থা না করিয়া চালানো।

৪০। যানবাহন চালানোর সময় সংগত কারণ ব্যতীত রাসত্মার বাম পার্শ্বে না থাকা অথবা একই

দিকগামী অন্য কোন যানবাহনের ডান পার্শ্বে না থাকা অথবা রাসত্মায় চলাচল সংক্রামত্ম অন্যান্য

বিধি-নিষেধ না মানা।

৭০৬৬ বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, অক্টোবর ১৫, ২০০৯

৪১। এই আইনের সাধারণ বা বিশেষ বিধানের ব্যত্যয়ে রেডিও বা বাদ্যযন্ত্র বাজানো, ঢাক-ঢোল

পিটানো, ভেঁপু বাজানো, অথবা কাঁশা বা অন্য কোন জিনিষের দ্বারা আওয়াজ সৃষ্টি করা।

৪২। আগেড়বয়াস্ত্র, পটকা বা আতশবাজি এমনভাবে ছোঁড়া অথবা উহাদের লইয়া এমনভাবে খেলা বা

শিকারে রত হওয়া যাহাতে পথচারী বা পার্শ্ববর্তী এলাকায় বসবাসকারী বা কর্মরত লোকজনের

বা কোন সম্পত্তির বিপদ বা ক্ষতি হয় বা হইবার সম্ভাবনা থাকে।

৪৩। পথচারীদের বা পার্শ্ববর্তী এলাকায় বসবাসকারী বা কর্মরত লোকজনের বিপদ হয় বা বিপদ

হইবার সম্ভাবনা থাকে এমনভাবে গাছ কাটা, দালান-কোঠা নির্মাণ বা খনন কাজ পরিচালনা

করা অথবা বিস্ফোরণ ঘটানো।

৪৪। এই আইনের অধীনে প্রয়োজনীয় অনুমতি ব্যতিরেকে স্বীকৃত গোরস্থান বা শ্মশান ছাড়া অন্য

কোথাও লাশ দাফন করা, শব দাহ করা।

৪৫। হিংস্র কুকুর বা অন্য কোন ভয়ঙ্কর প্রাণীকে নিয়ন্ত্রণবিহীন ভাবে ছাড়িয়া বা লেলাইয়া দিলে।

৪৬। এই আইনের অধীন বিপজ্জনক কোন দালান ভাঙ্গিয়া ফেলিতে বা তাহা মজবুত করিতে ব্যর্থ

হইলে।

৪৭। এই আইনের অধীন মানুষের বসবাসের অনুপোযোগী বলিয়া ঘোষিত কোন দালান কোঠা

বসবাসের জন্য ব্যবহার করা বা কাউকে ইহাতে বসবাস করিতে দেওয়া।

৪৮। এই আইনের অধীন প্রয়োজনীয় অনুমতি ছাড়া কোন দালান নির্মাণ বা পুনঃনির্মাণ করিলে।

৪৯। এই আইনের বিধান মোতাবেক কোন দালানে চুনকাম বা মেরামত করিতে ব্যর্থ হইলে।

৫০। এই আইনের অধীনে প্রদত্ত ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের কোন কর্মকর্তা বা

কর্মচারীকে বা ইউনিয়ন পরিষদের ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন ব্যক্তিকে ইচ্ছাকৃতভাবে বাধা প্রদান

করিলে ।

৫১। ইউনিয়ন পরিষদের কোন সদস্য বা কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারী কর্তৃক সজ্ঞানে, প্রত্যক বা

পরোক্ষভাবে, স্বয়ং বা কোন অংশীদার মারফত ইউনিয়ন পরিষদের কোন ঠিকাদারীতে স্বত্ত্ব বা

অংশ অর্জন করা।

৫২। এই আইন দ্বারা অপরাধ বলিয়া ঘোষিত কোন কাজ করা।

৫৩। এই আইনের বা কোন বিধি বা তদধীনে প্রদত্ত কোন আদেশ, নির্দেশ বা ঘোষণা বা জারিকৃত

কোন বিজ্ঞপ্তির খেলাপ।

৫৪। উপরি-উক্ত অপরাধসমূহ সংঘটনের চেষ্টা বা সহায়তা করা।

 

gd


Share with :
Facebook Twitter